সাভারে ৫০ লাখ জাল টাকাসহ আটক ৩

তপু ঘোষাল তপু ঘোষাল

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ৩:৩৯ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০২৩ 229 views
শেয়ার করুন

ঢাকার সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নে একটি পোশাক কারখানার আড়ালে জাল টাকা তৈরি কারখানা খুলে বসেছে একটি চক্র। এ ঘটনায় অভিযান পরিচালনা করে ৫০ লাখ ১৭ হাজার জাল টাকাসহ তিনজনকে আটক করেছে ঢাকা জেলা পুলিশ।

বুধবার (২৪ মে) অভিযান শেষে দুপুর ১টার দিকে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এসব তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) আসাদুজ্জামান।

আটকরা হলেন- বরিশাল জেলার মুলাদী থানার ডিগ্রীরচর খান বাড়ির জয়নাল আবেদীন খানের ছেলে সাখাওয়াত হোসেন খান (৪৫), শরীয়তপুর জেলার পালং থানার গয়াধর গ্রামের আল ইসলাম সরদারের ছেলে সুজন মিয়া (৩০) ও বরিশাল জেলার মুলাদী থানার বয়াতিকান্দি গ্রামের মানিক মোল্লার ছেলে নাজমুল হোসেন (২৪)। তাদের মধ্যে সাখাওয়াত হোসেন খান কারখানাটির মালিক।

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) আসাদুজ্জামান বলেন, আজ সকালে সাভারের অন্ধ মার্কেটের সামনে থেকে জাল টাকা দিয়ে লিচু কিনতে গেলে দোকানদারসহ স্থানীয়রা জাল নোট শনাক্ত করে ও একজনকে আটক করে সাভার থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ আটক ব্যক্তিকে নিয়ে সাভারের বনগাঁও এর সাধাপুর পুরানবাড়ি এলাকায় ওই কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে সম্পূর্ণ প্রস্তুত ৫০ লাখ জাল টাকা ও আরও প্রিন্ট অবস্থায় ৫০ লাখেরও বেশি টাকার সন্ধান পায়। পরে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে কারখানার সব জাল টাকা উদ্ধার করে তিনজনকে আটক করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আটকদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গার্মেন্টসটির অভ্যন্তরে সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তাসহ কয়েকজনের সহায়তায় জাল নোট তৈরির কারখানা গড়ে তোলে। আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরুর হাটে এই জাল নোট ব্যবহার করে বিপুল অর্থের মালিক হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলেন তারা। তাদের আরও ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এ বিষয়টি নিয়ে বেসিক ব্যাংকের কর্মকর্তা আদনান ইবনে সুলতান বলেন, জাল টাকা চেনার প্রথম প্রাথমিক উপায় হলো নিরাপত্তা দাগে ঘষলে হাতে একটু অনুভূত হবে। আসল টাকা ঘষলে বেশি অনুভূত হবে আর আসল টাকা কম অনুভূত হবে৷ আমরা যারা ব্যাংকে কাজ করি তারা সহজেই ধরতে পারি৷ সাধারণ মানুষের মাঝে এই টাকা ছড়িয়ে দেওয়া হলে সহজেই ধরতে পারবে না৷ এখানকার সব টাকাই জাল।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) আব্দুল্লাহ হেল কাফি, সহকারী পুলিশ সুপার সাহিদুল ইসলাম ও সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি) দিপক চন্দ্র সাহাসহ পুলিশ কর্মকর্তারা।