মানুষের পাপের শাস্তি সম্পর্কে …

রেজাউল করীম রেজাউল করীম

ইসলামি সংগীত শিল্পী

প্রকাশিত: ২:০১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২১ 96 views
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

মানুষের পার্থিব জীবনের ন্যায়-অন্যায়ের চুলচেরা হিসাব-নিকাশ হবে পরকালীন জীবনে। যদিও মানুষ তার সৃষ্টিশীল সৎকর্মের মাধ্যমে পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে চায়। তাই সে তার সৃষ্টিশীল কাজকর্মকে সমাজে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য নানা মত ও উপায় অবলম্বন করে, যাতে মানুষ তার সৃষ্টিকর্ম থেকে ভালো দিকগুলো গ্রহণ করতে পারে, সমাজ উপকৃত হয় এবং সৃষ্টির কল্যাণময় ধারা অব্যাহত থাকে।

 

 

যে ব্যক্তি নেকআমল বা সৎকর্ম করে ইহকাল ত্যাগ করে পরপারে চলে গেছে, আল্লাহ তার প্রতিফলের নিশ্চয়তা বিধানে চিরস্থায়ী জান্নাতে প্রবেশ করাবেন এবং যারা যাবতীয় অন্যায়, অপকর্ম, পাপাচার করে বদআমলের সঙ্গে পরলোকগমন করেছে, তাদের কপালে জুটবে ভীষণ যন্ত্রণাদায়ক অগ্নিকুণ্ডের শাস্তির স্থান জাহান্নাম। তাই ভূপৃষ্ঠে ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো ধরনের অন্যায় ও অপকর্ম করা চলবে না; একমাত্র আল্লাহকেই পূর্ণাঙ্গভাবে ভয় করে সাবধানে সঠিক পথে জীবন পরিচালনা করতে হবে।

 

 

পবিত্র কোরআনে যথার্থই বলা হয়েছে, ‘যে সৎকর্ম করে সে নিজের কল্যাণের জন্যই তা করে এবং কেউ মন্দকর্ম করলে তার প্রতিফল সে-ই ভোগ করবে। তোমার প্রতিপালক তাঁর বান্দাদের প্রতি কোনো জুলুম করেন না।’ (সূরা হা-মিম সিজদা, আয়াত: ৪৬)

 

রোজ হাশরে আল্লাহ তাআলা মানুষের পাপ-পুণ্যের ফয়সালা করবেন এবং যার যার দুনিয়ার আমল-আখলাক কর্মফল অনুযায়ী নিখুঁত নিক্তিতে বিচার করবেন। যারা অন্যায়, অপরাধ, দুর্নীতি ও অসৎকর্মে নিজকে নিয়োজিত রাখবে এবং পাপাচারে লিপ্ত থাকবে, প্রতিফলস্বরূপ তিনি তাদের কঠিনতম শাস্তির ভয়াবহ কষ্টে নিপতিত রাখবেন।

 

আর যারা সৎকর্মের মধ্যে নিজকে সমর্পণ করবে এবং ইসলামের বিধি-বিধান অনুযায়ী ইহকালীন জীবন অতিবাহিত করবে, আল্লাহ তাদের সুখ-শান্তিময় বেহেশত প্রদান করবেন। শুধু তাই নয়, সেসব নেকআমলকারীকে সম্মানজনক পুরস্কার প্রদান করবেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, ‘যারা ইমান আনে ও সৎকর্ম করে, তাদের জন্য আছে নিয়ামতে ভরা জান্নাত; সেখানে তারা স্থায়ী হবে। আল্লাহর প্রতিশ্রুতি সত্য। তিনি পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়।’ (সূরা লুকমান, আয়াত: ৮-৯)

 

দুনিয়ায় যত মানুষ এসেছে, আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের পর তাদের একত্র করে আমলনামার লিখিত প্রমাণের ভিত্তিতে বিচার করবেন। অবশ্য এ সময় মানুষের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ, হাত-পা কথা বলবে এবং ন্যায়-অন্যায়ের সাক্ষ্য দেবে। শেষ বিচারের দিন প্রতিটি মানুষ তার দুনিয়ার জীবনের কর্মফল অনুযায়ী ন্যায্য প্রতিদান পাবে। ভালো কাজ করলে পুরস্কার তথা জান্নাত আর মন্দকাজ করলে শাস্তি তথা জাহান্নাম। এ প্রসঙ্গে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেছেন, ‘আজ প্রত্যেককে তার কৃতকর্মের প্রতিফল দেওয়া হবে, আজ কারও প্রতি জুলুম করা হবে না।

 

আল্লাহ হিসাব গ্রহণে তৎপর।’ (সূরা আল-মুমিন, আয়াত: ১৭) অন্য আয়াতে বলা হয়েছে, ‘প্রত্যেকের মর্যাদা তার কর্মানুযায়ী, এটা এ জন্য যে আল্লাহ প্রত্যেকের কৃতকর্মের পূর্ণ প্রতিফল দেবেন এবং তাদের প্রতি অবিচার করা হবে না।’ (সুরা আল আহ্কাফ, আয়াত: ১৯)

 

ইসলামের আদল-ইনসাফ বা ন্যায়বিচারের দাবি হচ্ছে যেমন কর্ম তদানুযায়ী প্রতিফল পাওয়া। সৎকর্ম করলে কাজের হার অনুসারে পুরস্কার প্রাপ্তি আর অসৎকর্ম করলে তার পরিমাণ অনুযায়ী শাস্তি। সৎকর্ম সম্পাদনের প্রতিফল সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘কেউ কোনো সৎকর্ম করলে সে তার দশ গুণ পাবে এবং কেউ কোনো অসৎকাজ করলে তাকে শুধু তারই প্রতিদান দেওয়া হবে।’ (সূরা আল-আনআম, আয়াত: ১৬) অন্য আয়াতে বলা হয়েছে, ‘কেউ অণু পরিমাণ সৎকর্ম করলে তা দেখবে এবং কেউ অণু পরিমাণ অসৎকর্ম করলে তাও দেখতে পাবে।’ (সূরা আজ-জিলজাল, আয়াত: ৭-৮) এ জন্য মানবজাতিকে অপকর্ম প্রতিরোধের শিক্ষা দিয়ে নবী করিম (সা.) সাবধানবাণী ঘোষণা করেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে কেউ যদি কাউকে অন্যায় কাজ করতে দেখে, তাহলে সে যেন তার শক্তি দ্বারা তা প্রতিহত করে; যদি সে এতে অক্ষম হয়, তবে মুখ দ্বারা নিষেধ করবে; যদি সে এতেও অপারগ হয়, তবে সে অন্তর দ্বারা ঘৃণা পোষণ করবে।’ (মুসলিম)

 

 

শেষ বিচারের দিন মানুষের সঙ্গে আল্লাহর ক্ষমাসুন্দর আচরণ পরম করুণা ও দয়ার পরিচয় বহন করে। নানা অসিলায় ইমানদার পাপী বান্দাদের আল্লাহ ক্ষমা করে দেবেন। তাদের ভালো কাজের পুরস্কার ১০ গুণ থেকে ৭০০ গুণ পর্যন্ত বাড়িয়ে দেবেন। কিন্তু পাপের শাস্তি কোনো মতেই পাপের পরিমাণের চেয়ে অধিক হবে না। নিশ্চয়ই এগুলো আল্লাহর দয়ার আধিক্যের প্রমাণ। মানুষ ভুল করে সৃষ্টিকর্তার দেওয়া বিধি-বিধান ও সীমা লঙ্ঘন করে ফেলার পর নিজের ভুল বুঝতে পেরে আল্লাহর কাছে প্রত্যাবর্তন করলে সীমাহীন দয়া ও করুণার কারণে তিনি তা ক্ষমা করে দেন। এ প্রসঙ্গে ইরশাদ হয়েছে, ‘তাদের কর্মের মন্দ ফল তাদের ওপর আপতিত হয়েছে, এদের মধ্যে যারা জুলুম করে, তাদের ওপরও তাদের কর্মের মন্দ ফল আপতিত হবে এবং এরা (আল্লাহর শাস্তিকে) ব্যর্থও করতে পারবে না। …বলো, হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অন্যায়-অবিচার করেছ, আল্লাহর অনুগ্রহ থেকে নিরাশ হয়ো না; আল্লাহ সমুদয় পাপ ক্ষমা করে দেবেন, তিনিই তো ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সূরা আজ-জুমার, আয়াত: ৫১ ও ৫৩)

 

যদি কোনো বান্দা ভুলবশত ঘোরতর পাপকাজ করে ফেলে তাহলে সেই ব্যক্তি যদি কায়মনোবাক্যে সিজদারত হয়ে তওবা-ইস্তেগফার করে আল্লাহর দরবারে ক্ষমা ভিক্ষা চায় তাহলে আল্লাহ পাক দয়াপরবশ হয়ে সেসব লোককে ক্ষমা করে দেন। তাই আসুন, পরকালীন জীবনের ভয়-ভীতির শঙ্কা মাথায় রেখে পার্থিব জীবনে সব ধরনের অনৈতিক, পাপকাজ, অন্যায়-অপকর্ম ও কুপ্রবৃত্তি থেকে নিজেদের সর্বদা বিরত রাখি।

 

 

কোন পাপে কী শাস্তি

পাপীকে অবশ্যই পাপের শাস্তি ভোগ করতে হবে—এটা ন্যায়বিচারের দাবি। এ শাস্তি কারো ইহকালে, আবার কারো হবে পরকালে। পার্থিব জগতে কোন পাপের কী শাস্তি হয়, এ প্রসঙ্গে শ্রেষ্ঠতম তাফসিরবিদ আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেছেন, ‘কোনো জাতির মধ্যে আত্মসাৎ করা বৃদ্ধি পেলে সে জাতির লোকদের অন্তরে ভয়ের সঞ্চার করা হয়। কোনো জাতির মধ্যে ব্যভিচার ছড়িয়ে পড়লে সেখানে মৃত্যুর হার বৃদ্ধি পায়। কোনো সম্প্রদায়ের লোকেরা পরিমাপ ও ওজনে কম দিলে তাদের রিজিক সংকুচিত করা হয়। কোনো জাতির লোকেরা অন্যায়ভাবে বিচার-ফয়সালা করলে তাদের মধ্যে রক্তপাত বিস্তৃতি লাভ করে। কোনো জাতি প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করলে আল্লাহ শত্রুদের তাদের ওপর চাপিয়ে দেন।’ (মুয়াত্তা মালেক, হাদিস নম্বর : ১৩২৩)

 

 

আত্মসাৎ করা : আত্মসাৎ করা মারাত্মক গুনাহ ও জঘন্য অপরাধ। মালিক ক্ষমা না করলে এ গুনাহ আদৌ ক্ষমা হবে না। তাকে অবশ্যই জাহান্নামের অনলে জ্বলতে হবে। জায়েদ ইবনে খালিদ জুহানি (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, খায়বার যুদ্ধে জনৈক ব্যক্তি কোনো দ্রব্য আত্মসাৎ করে। পরে সে মারা গেলে মহানবী (সা.) তার জানাজা পড়াননি। তিনি সাহাবিদের উদ্দেশে বলেন, তোমাদের এ সঙ্গী আল্লাহর পথের সম্পদ আত্মসাৎ করেছে। বর্ণনাকারী বলেন, আমরা তার জিনিসপত্র তল্লাশি করে তাতে একটি রেশমি বস্ত্র পেলাম, যার মূল্য হবে দুই দিরহাম। (তিরমিজি, মিশকাত, পৃ. ২৪২)

 

ব্যভিচার করা : ব্যভিচারের শাস্তি ভয়াবহ। হাদিস শরিফে এসেছে, ‘ব্যভিচারের মন্দ পরিণাম ছয়টি। তিনটি দুনিয়ায়, আর তিনটি আখিরাতে। দুনিয়ার তিনটি হলো : ১. সৌন্দর্য নষ্ট হওয়া, ২. দরিদ্রতা, ৩. অকালমৃত্যু। আর আখেরাতের তিনটি হলো : ১. আল্লাহর অসন্তুষ্টি, ২. হিসাব-নিকাশের কঠোরতা ও ৩. জাহান্নামের কঠিন শাস্তি। (ইসলামের দৃষ্টিতে অপরাধ, ই.ফা. পৃ. ১০৯) আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তোমরা ব্যভিচারের নিকটবর্তীও হয়ো না। কারণ তা অশ্লীল ও নিকৃষ্ট আচরণ।’ (সুরা বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৩২)

 

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কোনো মানুষ যখন ব্যভিচারে লিপ্ত হয়, তখন তার ভেতর থেকে ঈমান বেরিয়ে যায় এবং এটি তার মাথার ওপর মেঘখণ্ডের মতো ভাসতে থাকে। অতঃপর সে যখন তাওবা করে, তখন ঈমান আবার তার কাছে ফিরে আসে।’ (আবু দাউদ, কিতাবুস সুন্নাহ, হাদিস নম্বর ৪৬৯০) তিনি আরো ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ব্যভিচার করে বা শরাব পান করে, আল্লাহ তার ওপর থেকে ঈমান ছিনিয়ে নিয়ে যান, যেভাবে মানুষ মাথার দিক দিয়ে জামা খুলে নেয়।’ (মুস্তাদরাকে হাকিম, ১ : ২২)

পরিমাণ ও ওজনে কম দেওয়া : পরিমাপে ও ওজনে কম দেওয়া নিষেধ। এটি জঘন্যতম খিয়ানত ও গুনাহে কবিরা। এর ফলে আল্লাহ তাআলা ফসলের উৎপাদন কমিয়ে দেন ও দুর্ভিক্ষ দেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘দুর্ভোগ তাদের জন্য, যারা মাপে কম দেয়, যারা মানুষের কাছ থেকে ওজন করে নেওয়ার সময় পূর্ণমাত্রায় গ্রহণ করে, আর যখন মানুষকে মেপে কিংবা ওজন করে দেয়, তখন কম দেয়।’ (সুরা : মুতাফফিফীন, আয়াত : ১-৩)

মহানবী (সা.) যখন হিজরত করে মদিনায় যান, তখন সেখানে আবু জুহায়লা নামক এক ব্যবসায়ী ছিল। তার দোকানে ছিল দুটি দাঁড়িপাল্লা। একটি দিয়ে সে অন্যের জিনিস মেপে রাখত, আর আরেকটি দিয়ে মানুষকে মাল মেপে দিত। তার প্রসঙ্গে উল্লিখিত আয়াত নাজিল হয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) একদা পরিমাপকারী ও দাঁড়িপাল্লা দ্বারা ওজনকারী ব্যবসায়ীদের বলেন, ‘তোমাদের ওপর এমন দুটি জিনিসের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে, যে জিনিসদ্বয়ের দায়িত্ব পালনে অবহেলা করার কারণে তোমাদের আগের উম্মত ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।’ (তিরমিজি) তিনি আরো ইরশাদ করেন, ‘বিচার দিবসে (অসৎ) ব্যবসায়ীদের হাশর হবে ফাসিক, কাফির ও বদকারী হিসেবে, তবে তাদের মধ্যে যারা মুত্তাকি, পুণ্যবান ও সত্যবাদী, তাদের এমনটি হবে না। (তিরমিজি, মিশকাত, পৃষ্ঠা : ২৪৪)

বিচারকার্যে অসততা : অন্যায়, দুর্নীতি ও অসততা সর্বদা হারাম ও মারাত্মক অপরাধ। বিচারক সেজে বিচারকার্যে দুর্নীতি করা আরো জঘন্য অপরাধ। বিচারকের জন্য ইনসাফ ও সততা অবলম্বন করা অপরিহার্য। মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘যে শাসক আল্লাহর নাজিলকৃত বিধান অনুসারে বিচার করে না, আল্লাহ তার নামাজ কবুল করেন না।’ (হাকিম) তিনি আরো বলেন, ‘এক শ্রেণির বিচারক জান্নাতে যাবে, আর দুই শ্রেণির বিচারক জাহান্নামে যাবে। যে বিচারক জান্নাতে যাবে, সে হলো এমন বিচারক, যে সত্য ও ন্যায়কে যথার্থ উপলব্ধি করে এবং তদনুযায়ী বিচার করে। পক্ষান্তরে যে বিচারক সত্য যথার্থ উপলব্ধি করেও ইচ্ছাকৃতভাবে অন্যায় রায় দেয়, সে জাহান্নামি। তদ্রূপ যে বিচারক সত্যকে যথার্থ উপলব্ধি না করে স্বীয় ইচ্ছানুযায়ী রায় দেয়, সে-ও জাহান্নামি।’ (আবু দাউদ)

প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করা : প্রতিশ্রুতি করলে তা পূরণ করা আবশ্যক। প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করা নিষেধ ও গুনাহে কবিরা। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘আর তোমরা অঙ্গীকার পূরণ করো। কেননা প্রতিশ্রুতি পূরণের বিষয়ে তোমাদের কাছে কৈফিয়ত তলব করা হবে। (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৩৪) মহানবী (সা.) বলেন, ‘যার মধ্যে আমানতদারি নেই, তার মধ্যে ঈমান নেই। অনুরূপ যে ব্যক্তি অঙ্গীকার রক্ষা করে না, তার মধ্যে দ্বিন নেই।’ (বায়হাকি, মিশকাত, পৃষ্ঠা : ১৫)

তিনি আরো ইরশাদ করেন, ‘মুনাফিকের নিদর্শন তিনটি : কথা বললে মিথ্যা বলে, অঙ্গীকার করলে ভঙ্গ করে, আমানত রাখলে খিয়ানত করে। অন্য বর্ণনায় রয়েছে চারটি। চতুর্থটি হলো যখন বিবাদ করে, গালাগাল করে।’ (বুখারি, মুসলিম, মিশকাত, ১৭ পৃষ্ঠা)

অতএব, প্রতীয়মান হলো যে অঙ্গীকার পূরণের সঙ্গে ঈমানের সম্পর্ক আছে। যার ঈমানের ঘাটতি রয়েছে, সেই অঙ্গীকার ভঙ্গ করে। আর এর ফলে আল্লাহ তাআলা শত্রুদের তাদের ওপর প্রবল করে দেন।

হিংসা করা : হিংসা নেকগুলো ধ্বংস করে দেয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা হিংসা থেকে বেঁচে থাকো। কেননা হিংসা পুণ্যকে এমনভাবে বিনষ্ট করে দেয়, যেভাবে আগুন কাঠকে ভস্মীভূত করে দেয়। (আবু দাউদ)

হিংসা থেকে বেঁচে থাকা ফরজ। কারণ তা এমন নীরব অনল, যা ক্রমে জ্বলে ওঠে এবং মানুষের নেকগুলো ধ্বংস করে দেয়। অথচ মানুষের কোনো খবরই থাকে না যে তার নেকগুলো নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে।

সুদ খাওয়া : সুদের ৭০ ধরনের গুনাহ রয়েছে। তন্মধ্যে নিম্নতম গুনাহ হলো, স্বীয় মাকে বিবাহ করা। (বায়হাকি, মিশকাত, পৃষ্ঠা : ২৪৬) আর সর্বোচ্চ গুনাহ হলো আল্লাহর বিরুদ্ধে জিহাদ করা। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘যারা সুদ খায় (বিচার দিবসে) তারা সে ব্যক্তির মতো দাঁড়াবে, যাকে শয়তান স্পর্শ করে পাগল বানিয়ে দিয়েছে।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২৭৫)

ঘুষ খাওয়া : ঘুষ আদান-প্রদান করা লানতযোগ্য কাজ। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘ঘুষদাতা ও গ্রহীতা উভয়ের প্রতি আল্লাহ তাআলার লানত।’ (আন-নিহায়া ফি গারিবিল হাদিস, ইবনুল আসির, দ্বিতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা : ২২৬)

মদপান ও জুয়া খেলা : মদপান ও জুয়া খেলা উভয় শয়তানের কাজ। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনরা! মদ, জুয়া, মূর্তি পূজার বেদি ও ভাগ্য নির্ণায়ক শর ঘৃণ্য বস্তু, শয়তানের কাজ। সুতরাং তোমরা তা বর্জন করো, তাহলেই তোমরা সফলকাম হতে পারবে। (সুরা : আল মায়িদা, আয়াত : ৯০)

মজুদদারি ও কালোবাজারি : মূল্যবৃদ্ধির উদ্দেশে খাদ্যদ্রব্য মজুদ রাখা এবং কালোবাজারি সম্পূর্ণরূপে হারাম। মহানবী (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি খাদ্যশস্য আটকে রাখে (মজুদদারি করে) আল্লাহ তাআলা তার ওপর মহামারি ও দারিদ্র্য চাপিয়ে দেন।’ (ইবনে মাজাহ ও বায়হাকি, মিশকাত, পৃষ্ঠা : ২৫১)

চুরি করা : চুরি করা জঘন্য অপরাধ। চুরি সমাজ থেকে শান্তি বিদূরিত করে দেয়। এর শাস্তি হলো, কবজি পর্যন্ত হাত কেটে দেওয়া। যেমন আল্লাহর বাণী—‘পুরুষ চোর ও নারী চোরের অপরাধের শাস্তিস্বরূপ উভয়ের হাত কবজি পর্যন্ত কেটে দাও।’ (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৩৮)

ডাকাতি ও ছিনতাই : ডাকাতি, ছিনতাই, লুটপাট ইত্যাদি চুরি অপেক্ষা গুরুতর অপরাধ। কারণ চুরি হয় গোপনে। আর ডাকাতি, ছিনতাই ও লুটপাট হয় প্রকাশ্যে। এদের শাস্তি হলো হত্যা, শূলে চড়ানো, হাত-পা কেটে ফেলা ও দেশ থেকে বহিষ্কার করা। মহানবী (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি প্রকাশ্যে লুটপাট করে, সে আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয়।’ (আবু দাউদ, মিশকাত, পৃষ্ঠা : ৩১৩)

বর্তমানে পৃথিবীতে পবিত্র কোরআন ও হাদিসে নিষিদ্ধ সব কার্যকলাপ অহরহ হচ্ছে। মুসলিম-অমুসলিম কেউই পাপ করতে দ্বিধাবোধ করছে না। তার পরও আগের বিভিন্ন জাতির মতো কেন প্রাকৃতিক মহাদুর্যোগ আসছে না। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা সুরা আনফালের ৩৩ নম্বর আয়াতে ইরশাদ করেছেন। সেখানে রয়েছে, দুটি কারণে  প্রাকৃতিক মহাদুর্যোগ  আসছে না : এক. মহানবী (সা.) মানুষের মাঝে বিদ্যমান আছেন, তথা তাঁর নবুয়ত চলছে, আর দ্বিতীয় কারণ হলো—এমন কিছু খাঁটি বান্দা রয়েছে, যারা সদা ইস্তিগফার করেন। এ দুটি কারণে আগের মতো আজাব প্রেরিত হয় না। তা ছাড়া হাদিস শরিফে আরো একটি কারণ পাওয়া যায়। সেটি হলো, মহানবী (সা.)-এর আগমনের পর মহান আল্লাহ এ জাতিকে সমূলে ধ্বংস না করার ওয়াদা করেছেন। তাই হাজারো পাপ সত্ত্বেও বর্তমানে আগের মতো আজাব নাজিল করা হয় না।

যেসব পাপের শাস্তি আল্লাহ দুনিয়াতেই দিয়ে থাকেন।
পাপের শাস্তি শুধু যে পরকালেই হবে এমন নয়, এমন কিছু পাপ রয়েছে যার প্রায়শ্চিত্ত দুনিয়াতেই মানুষকে ভোগ করতে হয়।

মহান আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘যে মন্দ কাজ করবে, তাকে সেই কাজের শাস্তি ভোগ করতে হবে।’ সূরা নিসা, আয়াত ১২৩। অন্য এক আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘জলে ও স্থলে মানুষের কৃতকর্মের দরুন বিপর্যয় ছড়িয়ে পড়েছে। আল্লাহ তাদের কর্মের শাস্তি আস্বাদন করাতে চান, যাতে তারা ফিরে আসে।’ সূরা রুম, আয়াত ৪১।

পাপাচারে নিমগ্ন হয়ে যারা আল্লাহর নিষেধাজ্ঞার কথা ভুলে যায় তাদের জন্য আল্লাহ তায়ারার হুঁশিয়ারী- ‘এবং যে আমার জিকির থেকে বিমুখ হবে, তার জীবনযাত্রা সংকীর্ণ হবে এবং আমি তাকে কিয়ামতের দিন অন্ধ অবস্থায় উঠাব।’ সূরা ত্বহা, আয়াত ১২৪।

আল্লাহর সঙ্গে কুফর ও শিরক করাটাও এমন এক মারাত্মক অপরাধ যাতে মানুষের মধ্যে ভয়, ভীতি ও আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আমি কাফিরদের অন্তরে ভীতি ঢুকিয়ে দেব, তারা আল্লাহর সঙ্গে শিরক স্থাপন করেছে।’ সূরা আলে ইমরান।

হাদিসের বর্ণনায়, ‘যখন কোনো সম্প্রদায়ের মধ্যে অশ্লীলতা এমনভাবে ছড়িয়ে পড়বে যে তারা প্রকাশ্যে অশ্লীলতায় লিপ্ত হতে থাকে, তখন তাদের মধ্যে এমন সব দুরারোগ্য ব্যাধির সংক্রমণ হবে, যা তাদের পূর্বপুরুষদের মধ্যে ছিল না।’ ইবনে মাজাহ।

যখন কোনো জাতির মধ্যে সুদ ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে, সেই জাতির ধ্বংস অনিবার্য হয়ে ওঠে। পবিত্র কালামে পাকে আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘তিনি সুদকে ধ্বংস করে দেন এবং দান-সদকাকে বৃদ্ধি করে দেন।’ সূরা বাকারা, আয়াত ২৭৬।

এই ধ্বংস ও পতন হতে পারে বিভিন্নভাবে। যেমন আসমানি-জমিনি বালামুসিবত, প্রাকৃতিক দুর্যোগের মাধ্যমে সুদের অর্থ ও সুদখোর ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। মদপান ও জুয়া খেলা উভয়ই শয়তানের কাজ।

আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনরা! মদ, জুয়া, প্রতিমা ও ভাগ্যনির্ধারক শরগুলো শয়তানের কাজ বৈ কিছু নয়। অতএব, এগুলো থেকে বেঁচে থাকো, যাতে তোমরা কল্যাণপ্রাপ্ত হও।’ সূরা মায়েদাহ, আয়াত ৯০।

অন্যের সম্পদ আত্মসাৎ, ব্যভিচার, ওজনে কম দেয়া, অন্যায়ভাবে বিচার-ফয়সালা করা, প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করা- এ অপরাধগুলোর শাস্তিও পাপীকে দুনিয়ায় ভোগ করতে হয়।

রাসূল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কোনো জাতির মধ্যে আত্মসাৎ-প্রবণতা বেড়ে গেলে সে জাতির অন্তরে ভয়ের সঞ্চার করা হয়। কোনো জাতির মধ্যে ব্যভিচার ছড়িয়ে পড়লে সেখানে অপমৃত্যুর হার বেড়ে যায়। কোনো সম্প্রদায়ের লোকেরা ওজনে কম দিলে তাদের রিজিক সংকুচিত করা হয়। কোনো জাতির লোকেরা অন্যায়ভাবে বিচার-ফয়সালা করলে তাদের মধ্যে রক্তপাত বিস্তৃতি লাভ করে। কোনো জাতি প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করলে আল্লাহ তাদের ওপর শত্রুদের চাপিয়ে দেন।’ মুয়াত্তা মালিক।

 

মৃত্যুর পর সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি কখন শুরু হবে?

পরকালের প্রথম মনজিল হলো কবর। কবর থেকেই কি মানুষ তার কৃতকর্মের সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে? এ সম্পর্কে ইসলামের দিকনির্দেশনাই বা কী?

হ্যাঁ, মৃত্যুর পর কবর থেকেই কর্মকাণ্ডের ওপর ভিত্তি করে সুখ-শান্তি কিংবা শাস্তি ভোগ করবে মানুষ। মৃত্যুর পর কবরের জিজ্ঞাসাবাদ, সেখানের সুখ-শান্তি এবং শাস্তিভোগ ইত্যাদি মুমিন মুসলমানের ঈমান বা বিশ্বাসের মানদণ্ড। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির ব্যাপারে কুরআন-সুন্নায় অসংখ্য প্রমাণ পাওয়া যায়। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে ঘোষণা করেন-‘আল্লাহ মুমিনদের দুনিয়ার জীবন ও পরকালে সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা শক্তিশালী করবেন। অপরদিকে আল্লাহ জালিমদের পথভ্রষ্ট করবেন। তাঁর যা ইচ্ছা তিনি তা-ই করেন।’ (সুরা ইবরাহিম : আয়াত ২৭)

এ আয়াত দু’টি বিষয় সুস্পষ্ট। একটি হলো আল্লাহ মুমিন বান্দাকে কবরে জিজ্ঞাসাবাদের সময় সুদৃঢ় বাক্য দ্বারা সঠিক উত্তর দেয়ার জন্য শক্তিশালী করবেন। তারা মুক্তি পাবে। আর যারা সঠিক উত্তর দিতে পারবে না, তারাই জালিম বা পথভ্রষ্ট। কাজেই কবরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে এ বিষয়টি সুস্পষ্ট। এ প্রসঙ্গে হাদিসে এসেছে-হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারির বর্ণনায় হজরত বারা ইবনে আজেব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, কবরে একজন মুসলিমকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে, তখন তিনি সাক্ষ্য দিয়ে বলবেন, ‘আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহরই রাসুল।’

কবরের জিজ্ঞাসাবাদ ও সেখানেই সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়টি হাদিস দ্বারাই প্রমাণিত। অন্য এক বর্ণনায় এসেছে-হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কোনো ব্যক্তিকে কবরে রেখে তার স্বজনরা যখন চলে যায়, সে (মৃতব্যক্তি) তখন তাদের চলার শব্দ শুনতে পায়। এমন সময় দুই জন ফেরেশতা আসেন এবং তাকে উঠিয়ে বসান। এরপর হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দিকে ইঙ্গিত দিয়ে প্রশ্ন করেন- এ ব্যক্তি সম্পর্কে তোমার মতামত কি ছিল?মৃতব্যক্তি যদি মুমিন হয় তবে সঙ্গে সঙ্গেই বলবে- ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসুল। তখন তাকে বলা হবে, জাহান্নামে তোমার স্থানটি লক্ষ্য কর এবং এ যন্ত্রণাময় স্থানের পরিবর্তে আল্লাহ তাআলা তোমাকে জান্নাতের সুখময় জায়গা উপহার দিয়েছেন। তখন সে দুটি স্থানই অবলোকন করবে।তারপর মৃতব্যক্তি যদি কাফের বা মুনাফিক হয় তবে তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে- তুমি এ ব্যক্তির সম্পর্কে কি ধারণা পোষণ করতে? উত্তরে সে বলবে- আমি তো মনে করতে পারছি না। তবে লোকে যা বলে আমিও তাই বলতাম। তখন তাকে বলা হবে- তুমি জাননি এবং কুরআনও পাঠ করনি। তারপর তাকে লোহার হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করা হবে; তখন সে এত উচ্চ স্বরে চিৎকার করতে থাকবে যে, জ্বীন ও মানুষ ছাড়া সবাই (সব প্রাণী) সে চিৎকার শুনতে পাবে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

 

মৃত্যুর পর কবরেই যে সুখ কিংবা আজাব হয়, তা হাদিসের অন্য একটি বর্ণনা থেকেও প্রমাণিত। হাদিসে এসেছে-হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, একদিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুইটি কবরের পাশ দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় বললেন, ‘এ কবরে যে দুইজনকে রাখা হয়েছে, তারা শাস্তি ভোগ করছে। তবে তাদের কোনো কবিরা গোনাহের জন্য শাস্তি দেয়া হচ্ছে না। বরং তাদের একজন পেশাবের সময় গোপনীয়তা ও সতর্কতা অবলম্বন করতো না। আর অপরজন চোগলখুরী করতো।’ (বুখারি)

সুতরাং এ বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, কবরের সুখ-শান্তি এবং শাস্তি সত্য। তা মানুষকে কবরে দাফনের পরপরই শুরু হয়। কেননা রাসুলে আরাবি অন্য একটি হাদিসে সুস্পষ্টভাবে এ ঘোষণা দিয়েছেন এভাবে-হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু এ হাদিসটিও রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেছেন- ‘আমি যদি এ আশংকা না করতাম যে, তোমাদের দাফন করবে (হবে) না। তবে আমি আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করতাম; যাতে তিনি তোমাদের কবরের আজাব বা শাস্তি শুনান; যা আমি শুনতে পাই।’ (মুসলিম)

কবরের আজাব থেকে বাঁচার দোয়াকবরের শাস্তি সত্য। সে কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের শাস্তি থেকে বাঁচার জন্য বেশি বেশি আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনার কথা বলেছেন। তিনি কবরের আজাব থেকে বাঁচার ভাষা ও দোয়া শিখিয়েছেন। হাদিসে এসেছে-হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সবাইকে কুরআন শেখানোর মতোই এ দোয়াটিও শিখিয়েছেন। তাহলো-اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ جَهَنَّمَ ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ عَذَابِ الْقَبْرِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ فِتْنَةِ الْمَسِيحِ الدَّجَّالِ، وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ فِتْنَةِ الْمَحْيَا وَالْمَمَاتِ ، উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা আউজুবিকা মিন আজাবি ঝাহান্নাম। ওয়া আউজুবিকা মিন আজাবিল ক্ববর। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাসিহিদ দাজ্জাল। ওয়া আউজুবিকা মিন ফিতনাতিল মাহইয়া ওয়াল মামাতি।’অর্থ : হে আল্লাহ! আপনার কাছে জাহান্নামের শাস্তি, কবরের আজাব (শাস্তি), দাজ্জালের ফেতনা-ফাসাদ থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। সঙ্গে সঙ্গে জন্ম-মৃত্যুর ফেতনা থেকেও তোমার কাছে আশ্রয় কামনা করি।’ (বুখারি ও মুসলিম)

এভাবে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবরের আজাব ও ফেতনা থেকে বেঁচে থাকতে আরও অনেক দোয়া করতেন।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, কবরের আজাব থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করা। কেননা পরকালের প্রথম মনজিলে যদি কবরের আজাব থেকে মুক্তি পাওয়া যায়; তবে আশা করা যায়, পরবর্তী মনজিলগুলোও আল্লাহ তাআলা নিজ দয়ায় নাজাত দান করবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মৃত্যু পরবর্তী জীবন ও কবরের আজাব থেকে আশ্রয় চাওয়া ও নাজাত পাওয়ার তাওফিক দান করুন। কবরের সুখ-শান্তি ও শাস্তির বিষয়ে বিশ্বাস স্থাপন করে পরিপূর্ণ মুমিন হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

 

মানুষের পাপের প্রতি ভালোবাসা…..
পাপের অন্যতম শাস্তি হলো, অন্তর থেকে পাপের প্রতি ঘৃণা উঠে যাওয়া। পাপ তখন অভ্যাসে পরিণত হয়। লোকে দেখে ফেললেও ব্যক্তি লজ্জা পায় না। পরোয়া করে না মানুষ কী বলল, না বলল। আর এটাই পাপের দেবতা, চূড়ান্ত নির্লজ্জতা এবং উপভোগ্যের শেষ সীমানা। এভাবে চলতে থাকলে পাপ তখন বড়াইয়ের বিষয়ে রূপ নেয়। ব্যক্তি তখন তাদেরকেও বলে বেড়ায়, যারা ইতিপূর্বে তার কৃতকর্মের কথা জানত না। বলে, ‘ওহে ওমুক! আমি এই এই কাজ করেছি। আমার এসবের অভিজ্ঞতা রয়েছে।’

এরা এমন শ্রেণীর মানুষ, যাদের কপালে ক্ষমা জোটে না। তাদের তাওবার পথ রুদ্ধ হয়ে আসে। তাওবার দরজা সিলগালা করে দেয়া হয়। নবীজি (ﷺ)-এর হাদীসে আমরা এ কথার প্রমাণ পাই। তিনি বলেছেন,

كُلُّ أُمَّتِي مُعَافًى إِلَّا الْمُجَاهِرُونَ، وَإِنَّ مِنَ الْإِجْهَارِ أَنْ يَسْتُرَ اللَّهُ عَلَى الْعَبْدِ ثُمَّ يُصْبِحُ يَفْضَحُ نَفْسَهُ وَيَقُولُ: يَا فُلَانُ عَمِلْتُ يَوْمَ كَذَا وَكَذَا كَذَا وَكَذَا، فَهَتَكَ نَفْسَهُ، وَقَدْ بَاتَ يَسْتُرُهُ رَبُّهُ

‘আমার উম্মতের মধ্যে (পাপ) প্রকাশকারী ব্যতীত সবাইকে মাফ করে দেয়া হবে। আর (পাপ) প্রকাশের একটা ধরন হলো, বান্দার (রাতে করা যে পাপ) আল্লাহ ঢেকে রাখেন, সকালে বান্দা নিজেই তা প্রকাশ করে দেয়। বলে, “হে ওমুক, আজ আমি এই এই কাজ করেছি।” এভাবে নিজের আবরণ ছিন্নভিন্ন করে ফেলে। অথচ সে এমন অবস্থায় রাত কাটিয়েছে যে, আল্লাহ তার কৃতকর্ম লুকিয়ে রেখেছিলেন।’
বুখারী (৪/৬১); মুসলিম (৫৩/৮, হাঃ ২৯৯০).