আমিরাতে বঙ্গ ক্রীড়া উৎসব ও আলোচনা সভা

আমিনুল হক আমিনুল হক

বায়ান্ন টিভি

প্রকাশিত: ৪:৩৮ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০২২ 101 views
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিজয় দিবস শুধু আমাদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ করলে হবে না, আগামী প্রজন্ম অর্থাৎ আমাদের বাচ্চাদের বিজয় দিবসের ইতিহাস সর্ম্পকে জানাতে হবে। ১৯৪৭ সাল থেকে শুরু করে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর পর্যন্ত রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের ইতিহাস সর্ম্পকে জানাতে হবে। ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় অর্জন করার মাধ্যমে বাংলাদেশের জন্ম হয়েছিল বলেই আমরা বাংলাদেশী। বাংলাদেশ আজ স্বাধীন একটি রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের দরবারে মাথা উচু করে দাঁড়িয়ে আছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল বীর শহীদদের প্রতি মহান বিজয় দিবসে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।

বাংলাদেশ রেডিমেড গার্মেন্টস ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন আজমান এর আয়োজনে ৫১তম বিজয় ফিবস উপলক্ষে বঙ্গ ক্রীড়া উৎসব ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ কন্সুল্যেট জেনারেল দুবাই ও উত্তর আমিরাতের কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেন এসব কথা বলেন।

গতকাল শুক্রবার (১৬ ডিসেম্বর) আজমান হিলু এলাকায় অবস্থিত ইয়াকুব সৈনিক ফার্ম হাউজে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ রেডিমেড গার্মেন্টস ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন আজমানের সভাপতি ইমন মোহাম্মদ হাকিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনিরের সঞ্চালনায় প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল দুবাইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি আইয়ুব আলী বাবুল।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল দুবাইয়ের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ, আজমান বিজনেস কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন, বাংলাদেশ রেডিমেড গার্মেন্টস ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন আজমানের প্রধান উপদেষ্টা হুমায়ুন কবির, উপদেষ্টা আলহাজ রফিকুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সমিতির আহ্বায়ক সিআইপি জাকির হোসেন চুট্টু, দুবাই বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ আলী, ইউএই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন কাউসার, আজমান বিজনেস কাউন্সিলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, কমিউনিটি নেতা বদরুল ইসলাম চৌধুরী সিআইপি, একে আজাদ লালন প্রমুখ।

বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল আজমানের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, রেডিমেইড গার্মেন্টস ট্রেডার্স এসোসিয়েশন আজমানের উপদেষ্টা কাশেম মিয়া, লোকমান খান, আলমগীর হোসেন, সাহাব উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম, সাইদ ভুইয়া, নূরুল আমীন, সিনিয়র সহ সভাপতি শামিম আহমদ, সহ সভাপতি মিসবাহ উদ্দিন গাজী, সুমন আহমদ, মোহাম্মদ নাসির, মনিরুজ্জামান মনির, সহ সাধারন সম্পাদক বাহাদুর মামুন, সাংগঠনিক সম্পাদক ছালাউদ্দিন আরিফ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আশরাফ চৌধুরী, সহ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ এনাম, মাইনউদ্দিন, মোহাম্মদ সেলিম, জাফর ইকবাল, মোহাম্মদ মাসুদ, খন্দকার মেহেদী, মোহাম্মদ রনি, মনির আবরার, মাহমুদ আলম, আব্দুর রহিম, দুলাল সরকার, মুরাদ সহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের পর পরই বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। পাশাপাশি বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে নিহত সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার আদলে লাল-সবুজের মিশ্রনে তৈরি পোশাক পরিধান করে অনেকেই সপরিবারে উপস্থিত ছিলেন। সবার উপস্থিতিতে মনে হয়েছে এক খন্ড বাংলাদেশ।

আয়োজিত বঙ্গ ক্রীড়া উৎসবে ছোট ছেলে-মেয়েদের জন্য ছিল ১০০ মিটার দৌড়, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, বিস্কুট দৌড়, মহিলাদের পিলো পাসিং, হাতের তৈরি পিঠা, পুরুষদের হাড়ি ভাংগা, পিলো পাসিং সহ বিভিন্ন খেলাধুলায় সবাই অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনা সভা শেষে প্রতিযোগিতায় বিজয়ী সবাইকে বিভিন্ন কোম্পানির পক্ষ থেকে আকর্ষনীয় পুরস্কার প্রদান করা হয়। আয়োজিত অনুষ্ঠানকে আরো উৎসব মুখর করার জন্য সবার মধ্য থেকে লটারির মাধ্যমে বিজয়ীদের বিশেষ পুরস্কার প্রদান করা হয়।