আমিরাতে গেলেন আটকে পড়া সেই ৮০ যাত্রী

প্রকাশিত: ১২:২৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৭, ২০২১ 416 views
শেয়ার করুন
  • 463
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    463
    Shares

 

করোনা পরীক্ষার ফল পেতে দেরি হওয়ায় ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকা পড়েছিলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতগামী ৮০ যাত্রী। অবশেষে তাঁদের দেশটিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে তাঁরা আমিরাতের উদ্দেশে যাত্রা করেন।

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রবাসীকল্যাণ ডেস্কের সহকারী পরিচালক মো. ফখরুল আলম এ তথ্য জানিয়েছেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেতে দুবার করোনা পরীক্ষা করাতে হয়। একবার যাত্রার ৪৮ ঘণ্টা আগে। আরেকবার যাত্রা শুরুর ছয় ঘণ্টা আগে, বিমানবন্দরে। গত ২৯ সেপ্টেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষা পদ্ধতির আনুষ্ঠানিক অনুমতি দিয়েছে। ওই রাত থেকেই সংযুক্ত আরব আমিরাতে উড়োজাহাজ চলাচল শুরু হয়। তবে যাত্রার ছয় ঘণ্টা আগে বিমানবন্দরে করোনার পরীক্ষা করাতে সময় লাগছে।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, সংযুক্ত আরব আমিরাতের উদ্দেশে গত সোমবার দিবাগত রাতে ইতিহাদ এয়ারওয়েজের একটি উড়োজাহাজ যাত্রা করে। তবে ওই উড়োজাহাজের ৮০ জন যাত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেতে পারেননি। তাঁরা করোনা পরীক্ষার ফল সময়মতো পাননি। এ কারণে তাঁরা নির্ধারিত সময়ে বোর্ডিং কাউন্টারে পৌঁছাতে পারেননি। এখন তাঁদের সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তৌহিদ-উল আহসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ফল পেতে বিলম্ব হচ্ছে। অনেকেই নির্ধারিত ফ্লাইট ধরতে পারছেন না। সময়মতো করোনা পরীক্ষার ফল দিতে স্বাস্থ্য বিভাগকে আরও কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

বিশেষত সংযুক্ত আরব আমিরাতগামী যাত্রীরা যাতে আরও অল্প সময়ের মধ্যে করোনা পরীক্ষার ফল পেতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করতে হবে।’

ভোগান্তি এড়াতে যাত্রীদের করণীয় প্রসঙ্গে তৌহিদ-উল আহসান বলেন, ‘যাত্রীদের সঠিক সময়ে বিমানবন্দরে আসতে হবে। যাত্রার অন্তত ছয় থেকে আট ঘণ্টা আগে বিমানবন্দরে এলে আর এমন সমস্যা হবে না।’

এদিকে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বিমানবন্দরে সংযুক্ত আরব আমিরাতগামী ৩ হাজার ২৪৯ জন করোনা পরীক্ষা করিয়েছেন। এ সময় একজনের পরীক্ষার ফল পজিটিভ এসেছে।